মীরজাফরদের রুখে দাঁড়ান: মমতা

শেষ মুহুর্তে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বেশ জমে উঠেছে নির্বাচনি প্রচারণা। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি রোববার পূর্বমেদিনীপুরের উত্তর কাঁথিতে বিশাল জনসভায় বক্তব্য রাখেন।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বাংলায় মীরজাফরদের আর স্থান হবে না। আপনার গাদ্দারদের রুখে দিন মূল্যবান ভোট প্রয়োগ করে। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

মমতার পাশাপাশি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও ছিলেন নির্বাচনি প্রচারে। সমাবেশে মমতা বলেন, দেউচা পাঁচনিতে দ্বিতীয় বৃহত্তম কয়লা খনি করছি। আগামী ১০০ বছর বিদ্যুতের কোনো সমস্যা হবে না। সুলভে বিদ্যুৎ দেব আপনাদের।

লকডাউনের সময় যতজন আটকে পড়েছে, তাদের হাত খরচ দিয়ে, ট্রেন ভাড়া করে বাড়িতে নিয়ে এসেছি। এমনকি যতদিন না আসতে পারছেন হোটেলে থাকার খরচও দিয়েছি।

আগামী দিনে পাঁচ লাখ কোটি টাকার স্মল স্কেল ইনভেস্টমেন্ট করব, পাঁচ লাখ ছেলেমেয়ের চাকরি দেওয়া হবে।

সব স্তরের মানুষকে সামাজিক সুরক্ষায় নিয়ে এসেছি। ৬০ বছর বয়স হলেই পেনশন পাবে। মেয়ের বিয়ে হলে ২৫ হাজার টাকা পাবে। দরখাস্ত করলেই পাবে।

কোভিড পরিস্থিতিতে মায়ের খাওয়া পর্যটনশিল্পের জন্য আমার সরকার ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত ব্যাংক লোনের ব্যবস্থা করেছে। ৫০ শতাংশ সুদ সরকার দেবে।

কৃষকের জমিতে খাজনা লাগে না। আমি মওকুফ করে দিয়েছি। শস্য বীমার টাকাও দিতে হয় না। এখন একরপ্রতি কৃষকরা সরকার থেকে ছয় হাজার টাকা করে পান। আগামী মে মাস থেকে ১০ হাজার টাকা করে পাবেন।

মেয়েরা বাড়ির সব কাজ করে। কিন্তু ওদের হাতে টাকা থাকে না। তাই আমাদের সরকার ঠিক করছে, প্রতিমাসে তাদের ৫০০ টাকা করে হাত খরচ দেওয়া হবে। তফসিলি জাতি ও উপজাতিরা এক হাজার টাকা করে পাবেন।

সভায় এভাবেই রাজ্যবাসীকে তার সরকারের অবদানের কথা স্মরণ করিয়ে দেন।  তিনি আরও বলেন, সিপিএমের হার্মাদ আর আমাদের কিছু গদ্দার গিয়ে বিজেপিতে জুটেছে।

ইলেকশনের আগে কোনো গুণ্ডাদের ঢুকতে দেবেন না। গ্রামের রাস্তা আটকে ক্যাম্প করলে প্রতিবাদ করুন।